ঢাকারবিবার, ২৯শে জানুয়ারি, ২০২৩ খ্রিস্টাব্দ

অনুশীলনে নেই মেসি, ফাইনালের আগে বাড়ছে শঙ্কা

স্পোর্টস ডেস্ক
ডিসেম্বর ১৬, ২০২২ ৫:৫৬ অপরাহ্ণ
Link Copied!

কাতার বিশ্বকাপের শ্রেষ্ঠত্বের লড়াইয়ে মাঠে নামছে বর্তমান চ্যাম্পিয়ন ফ্রান্স ও আর্জেন্টিনা। তবে ফাইনালের আগে আর্জেন্টিনার প্রথম অনুশীলনে ছিলেন না লিওনেল মেসি। জিমে সময় কাটিয়েছেন বলে শোনা যাচ্ছে। অনুশীলনে মেসি না থাকায় উঁকি দিচ্ছে নানা প্রশ্ন।


বাংলালাইভের সর্বশেষ খবর পেতে Google News অনুসরণ করু


কাতার বিশ্ববিদ্যালয়ের মাঠে বৃহস্পতিবার (১৫ ডিসেম্বর) ফাইনালের লক্ষ্যে প্রথম অনুশীলন সেরেছে লিওনেল স্ক্যালোনির শিষ্যরা। সেখানে মেসি অনুপস্থিত থাকলেও ছিলেন বিশেষ এক অতিথি- সার্জিও আগুয়েরো! ফুটবলকে বিদায় বলা আর্জেন্টাইন এ সাবেক তারকা বিশ্বকাপের শুরু থেকেই কাতারে আছেন। মেসিদের উৎসাহ দিতে নানা কর্মকাণ্ডে ব্যস্ত থাকতে দেখা যায় তাকে। 

ক্রোয়েশিয়াকে ৩-০ ব্যবধানে হারিয়ে ফাইনাল নিশ্চিত করার ম্যাচে মাঠে বেশ কবার পায়ে হাত দিতে দেখা গেছে মেসিকে। তাতে স্পষ্ট বোঝা যাচ্ছে, পায়ে কিছুটা সমস্যা অনুভব করছেন আর্জেন্টাইন সুপারস্টার।

আর তারপরই ভক্তদের মনে শঙ্কা দানা বাঁধতে থাকে; ফাইনালে পাওয়া যাবে তো? ম্যাচের পর অনেক গণমাধ্যমে দাবি করা হয়, কৌশলগত কারণেই মেসির চোটের বিষয়টি অনেকটা চেপে গেছে আর্জেন্টাইন টিম ম্যানেজমেন্ট। 

ম্যাচ জয় নিশ্চিত জেনে আলভারেজ, মলিনাদের দ্বিতীয়ার্ধে মাঠ থেকে তুলে নিয়েছেন আর্জেন্টাইন কোচ লিওনেল স্ক্যালোনি। কিন্ত পায়ে ব্যথা নিয়েও খেলে গেছেন আর্জেন্টিনার অধিনায়ক। বড় ইনজুরির ঝুঁকি থাকা সত্ত্বেও তাকে উঠিয়ে নেননি কোচ। শুধু এ ম্যাচ নয়, পুরো বিশ্বকাপেই প্রতিটি ম্যাচে শুরু থেকে শেষ পর্যন্ত খেলে গেছেন আর্জেন্টাইন বরপুত্র।

দিন দুয়েক আগে মেসির ইনজুরি নিয়ে সতীর্থ গোলরক্ষক এমিলিয়ানো মার্টিনেজ জানান, বিশ্বকাপ শুরুর আগেই মেসির পুরনো চোট ছিল। এমনকি পিএসজিতে বেশকিছু ম্যাচ মিস করেছেন তিনি। তবে ক্রোয়েশিয়ার বিপক্ষে ম্যাচে হ্যামস্ট্রিংয়ে চোট নাকি বেশি গুরুতর নয়। ভক্তদের আশ্বস্ত করলেন, সুপার সানডেতে লুসাইলে বিশ্বকাপ ফাইনালে নাকি স্বরূপে দেখা যাবে আর্জেন্টাইন কিংবদন্তিকে।

অ্যাস্টন ভিলায় খেলা মার্টিনেজ বলেন, ‘আমরা নেদারল্যান্ডসের বিপক্ষে ১২০ মিনিট খেলেছি, এটা তার (মেসি) জন্য কঠিন খেলা ছিল। কিন্তু আপনি নিশ্চয়ই দেখেছেন যে, তিনি প্রতিটি খেলা শেষ করে আসতে চেয়েছেন। শারীরিকভাবে তিনি সত্যিই ভালো আছেন এবং প্রতিটি খেলায় ম্যাচসেরাও হয়েছেন।’

মেসির মাঠে থাকা মানেই প্রতিপক্ষের ভয়। সতীর্থদের জন্য অনুপ্রেরণা। মেসি মাঠে থাকলে তাকে সামলাতেই আলাদা পরিকল্পনা করতে হয় প্রতিপক্ষের কোচকে। মার্কিংয়ে রাখে ২-৩ জন ফুটবলার। ইতিহাস গড়ার ম্যাচে মেসির যে থাকা চাই-ই চাই। ২০১৪-এর সেই ছবিটার আক্ষেপ কি এবার ঘোচাতে পারবেন আর্জেন্টাইন বরপুত্র?