সিংগাইরের ধল্লায় ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে হত্যার চেষ্টা

  •   
  •   
স্টাফ করেসপন্ডেট:বাংলালাইভ২৪.কম

মানিকগঞ্জের সিঙ্গাইর থানার ধল্লা ইউনিয়ন ফোর্ড নগর গ্রামে ইকবাল হোসেন শামীম (৪০) নামে এক ব্যবসায়ীকে কুপিয়ে ও পিটিয়ে হত্যার চেষ্টা করে সন্ত্রাসীরা। অস্ত্রের আঘাঁতে মাহবুব খান নামে আরো এক ব্যক্তি আহত হয়েছে। গত শুক্রবার(১৫ নভেম্বর) ফোর্ডনগর আদর্শ গ্রামে আকতার ফার্ণিচার ফ্যাক্টরীর সামনে এ ঘটনা ঘটে। গুরুতর আহত ব্যবসায়ী শামীম ও মাহবুব খানকে ঢাকার সমরিতা হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। থানায় লিখিত অভিযোগ জমা দিয়েছেন শামীম হোসেন এর পিতা।

স্থানীয় একাধিক সূত্রে জানা গেছে, এলিগ্যান্স ফার্ণিচারের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ও সিঙ্গাইর ফোর্ডনগর ডেভেলপমেন্ট সোসাইটির সাংগঠনিক সম্পাদক ইকবাল হোসেন শামীমের সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে ফোর্ডনগর গ্রামের আলম খাঁন (৫৮), বক্কার খাঁন ও নাজির খানসহ তাদের লোকজনের বিরোধ চলে আসছিল। এছাড়াও বক্কার খানসহ তাদের পক্ষের একাধিক ব্যক্তির বিরুদ্ধে এক নারীকে গণধর্ষন ও সন্ত্রাসী কর্মকান্ডের একাধিক মামলা আদালতে বিচারাধীন।

ইকবাল হোসেন শামীম গত শুক্রবার সন্ধায় ফোর্ডনগর আদর্শ সামনে পৌছলে আলম খাঁন (৫০), বক্কার খাঁন (৪০), নাজির খান (৩৮), রবিন খান (২০), রুবেল খান (২৩) খোকন খান (২৮) ও সাগরসহ (৩২) অজ্ঞাতনামা আরো ৫-৬ জন লোক দেশীয় তৈরি ধারালো অস্ত্রশস্ত্র রামদা, চাপাতি, লোহার রড. হাতুরি ও লাঠিশোডা নিয়ে ইকবাল হোসেন শামীমের ওপর হামলা করে। এসময় শামীমকে রক্ষার জন্য একই এলাকার মাহবুব খান এগিয়ে আসলে তাকেও কুপিয়ে আহত করা হয়। তাদের ডাকচিৎকারে আশপাশের লোকজন এগিয়ে আসলে হামলাকারীরা বীরদর্পে পালিয়ে যায়। খবর পেয়ে স্বজনরা তাদের উদ্ধার করে ঢাকাস্থ সমরিতা হাসপাতালে ভর্তি করে।

ইকবাল হোসেন শামীম বলেন, হামলাকারীরা আমাকে সুকৌশলে গাড়ি থেকে নামিয়ে হত্যার উদ্দেশ্যে ধারালো অস্ত্র ও লোহার রড দিয়ে আঘাত করে। হামলার ঘটনায় শামীমের পিতা মোস্তফা মিয়া বাদি হয়ে ৭ জনের নাম উল্লেখ ও অজ্ঞাত কয়েকজনকে অভিযুক্ত নামে থানায় লিখিত অভিযোগ দেন।

বক্কার খান মুঠোফোনে বলেন তাদের হোটেলে হামলা ও ভাংচুরের ঘটনায় শামীমসহ কয়েক জনের নামে সিংগাইর থানায় লিখিত অভিযোগ জমা দেয় তিনি।

স্থানীয়রা জানায় বক্কার ও তার লোকজন নিজেরা তাদের হোটেল ভাংচুর করে শামীম ও তার লোকজনের উপর মিথ্যা অভিযোগ দিয়েছে।

ধল্লা ইউনিয়নের ১ নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারণত সম্পাদক মানিক খাঁন বলেন স্থানীয় সাংসদ তাদের পক্ষে, চেয়ারম্যান তাদের পক্ষে থানা তাদের পক্ষে শামীম তার অনেক ক্ষতি করেছে। তাই শামীমের পক্ষে না লিখে আমাদের পক্ষে সংবাদ প্রচার করেন বলেও জানায় তিনি।

সিংগাইর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুর সাত্তার মিয়া বলেন উভয়পক্ষ থানায় লিখিত অভিযোগ জমা দিয়েছে দুটি অভিযোগ তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে। তিনি আরও বলেন সন্ত্রাসী কর্মকান্ড যেই করুক তাকে আইনের আওতায় আনা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.

Share via
Copy link
Powered by Social Snap