৫ উইকেট হারিয়ে টালমাটাল বাংলাদেশ

  •   
  •   
স্পোর্টস ডেস্ক । বাংলালাইভ২৪.কম

উৎসবের আবহে শুরু হলো কলকাতা টেস্ট। ভারতের মাটিতে প্রথম দিবা-রাত্রির টেস্ট, কৃত্রিম আলোয় প্রথমবার টেস্ট খেলছে বাংলাদেশও।

পারলেন না মুশফিক

দলকে উদ্ধার করতে পারলেন না মুশফিকুর রহিমও। এই দলের সবচেয়ে অভিজ্ঞ ক্রিকেটার ফিরলেন দলকে আরও বিপদে ঠেলে। মোহাম্মদ শামির বল স্টাম্পে টেনে এনে বিদায় নিলেন শূন্য রানে।

অফ স্টাম্প লাইনে খানিকটা শর্ট অব লেংথ বলটি আলগা হাতে ডিফেন্স করেছিলেন মুশফিক। বল পিচ করে ভেতরে ঢোকে খানিকটা। মুশফিক ব্যাট পেতেছিলেন শরীর থেকে খানিকটা দূরে। তাতেই সর্বনাশ। বল ব্যাটের কানায় লেগে উইকেট পড়ে গিয়ে লাগে স্টাম্পে।

আগের টেস্টে বাংলাদেশের সেরা ব্যাটসম্যান মুশফিক এবার বিদায় নিলেন ৪ বলে শূন্য রানে। টেস্টে তার একাদশ শূন্য।

বাংলাদেশ বিপর্যস্ত শুরুতেই। দ্বাদশ ওভারে রান ৪ উইকেটে ২৬।

উড়ল মিঠুনের স্টাম্পস

মোহাম্মদ মিঠুন উইকেটে গেলেন এবং ফিরলেন! তিন বলের মধ্যে দুই উইকেট নিলেন উমেশ যাদব।

মুখোমুখি প্রথবল বলটি বেশ আস্থায় ডিফেন্স করেছিলেন মিঠুন। পরের বলটিতে ঠিকঠাক করতে পারলেন না কিছুই। সিমে পিচ করে একটু ভেতরে ঢোকে বল। মিঠুন জোড়া পায়ে খেলতে গিয়ে যখন ব্যাট নামালেন, বাল তার আগেই উড়িয়ে দিয়েছে স্টাম্প!

গতি ছিল ১৩৮ কিলোমিটার, খুব বেশি নয়। তবু খেলতে অনেক দেরি করলেন মিঠুন। বিদায় নিলেন ২ বলে শূন্য রান করে।

বাংলাদেশ ৩ উইকেটে ১৭।

মুমিনুল শূন্য

দলকে ভালো কিছু উপহার দিতে পারলেন না মুমিনুল হকও। বাংলাদেশ অধিনায়ক শূন্য রানে ফিরলেন স্লিপে রোহিত শর্মার অসাধারণ ক্যাচে।

নতুন স্পেলে ফেরা উমেশ যাদবের প্রথম ডেলিভারি সেটি। পিচ করে বল বেরিয়ে যাচ্ছিল অ্যাঙ্গেলে। মুমিনুল পেতে দিলেন ব্যাট। লাইন কাভার করেননি, বল তার ব্যাটের কানায় লেগে যায় স্লিপে বিরাট কোহলির দিকে। ভারতীয় অধিনায়ক প্রথম স্লিপে অপেক্ষা করছিলেন বল তার হাতে আসার। কিন্তু দ্বিতীয় স্লিপ থেকে ফুল লেংথ ডাইভ দিয়ে দুর্দান্ত রিফ্লেক্সে বল এক হাতে তালুবন্দী করলেন রোহিত।

টেস্ট ক্যারিয়ারে সপ্তমবার শূন্য রানে ফিরলেন মুমিনুল। বাংলাদেশ ২ উইকেটে ১৭।

রিভিউ হারাল ভারত

শামির দ্বিতীয় বলেই আরেক দফা বাজেভাবে পরাস্ত সাদমান। উইকেটের পেছনে ডানদিকে ঝাঁপিয়ে অসাধারণভাবে বল গ্লাভসে জমালেন ঋদ্ধিমান সাহা। ভারতের জোরালো আবেদনে সাড়া দিলেন না আম্পায়ার মারাইস ইরাসমাস। বিরাট কোহলি নিলেন রিভিউ।

রিভিউয়ে দেখা গেল, সাদমানের ব্যাটের কাছাকাছিও ছিল না বল। শব্দ একটি হয়েছিল বটে, সেটি অন্য কিছু থেকে। ভারত হারাল একটি রিভিউ। সাদমানের রান তখন ১০।

অল্পের জন্য রক্ষা সাদমানের

মোহাম্মদ শামির প্রথম বলেই আউট হতে হতে বেঁচে গেলেন সাদমান ইসলাম। শামির শর্ট বলটি হয়তো বুঝতেই পারেননি সাদমান, খেলতে পারেননি ঠিকমতো। পজিশনেই যেতে পারেননি। বল তার বাড়িয়ে ধরা ব্যাটে লেগে বাতাসে ছিল বেশ কিছুক্ষণ। তবে কোনো ফিল্ডার বলের কাছে যেতে পারেননি সময় মতো।

আবার ব্যর্থ ইমরুল

একই ওভারে আবার ইমরুল কায়েসকে আউট দিলেন আম্পায়ার। এবার এলবিডব্লিউ। সাদমানের সঙ্গে পরামর্শ করে ইমরুল রিভিউ নিলেন আবার। তবে এবার রক্ষা হলো না। আউট হলেন ইমরুল, বাংলাদেশ হারাল একটি রিভিউও।

সুইং খুব বেশি না পাওয়ায় হয়তো ইশান্ত চেষ্টা করছেন কাটার করার। রাউন্ড দা উইকেটে করা বলটি অনেকটা শাফল করে খেলতে চেষ্টা করেছিলেন ইমরুল। কিন্তু বল পিচ করে ব্যাটকে ফাঁকি দিয়ে আরেকটু ভেতরে ঢুকে লাগে পায়ে। খালি চোখেই মনে হচ্ছিল আউট, রিভিউয়ে সেটিই নিশ্চিত হয়েছে।

১৫ বলে ৪ রান করে আউট হলেন ইমরুল। বাংলাদেশ ৬.৩ ওভারে ১ উইকেটে ১৫।

সাদমানের সঙ্গে উইকেটে যোগ দিয়েছেন মুমিনুল হক।

রিভিউয়ে টিকলেন ইমরুল

ইশান্ত শর্মার বলে ইমরুল কায়েসকে কট বিহাইন্ড দিয়েছিলেন আম্পায়ার জোয়েল উইলসন। ইমরুল রিভিউ নেন সঙ্গে সঙ্গেই। টিভি রিপ্লেতে দেখা যায়, ব্যাট স্পর্শ করেনি বল। তবে ইমরুলের থাই প্যাডে লাগায় শব্দ হয়েছিল, সেটিই হয়তো বিভ্রান্ত করেছিল আম্পায়ারকে।

ইমরুলের রান তখন ৪।

সতর্কতায় শুরু

যতটা ধারণা করা হয়েছিল, ততটা সুইং মিলছে না গোলাপি বলে। ঘাসের ছোঁয়া থাকা উইকেটেও গতি ও বাউন্স খুব একটা দেখা যাচ্ছে না। ভারতের নতুন বলের দুই বোলার ইশান্ত শর্মা ও উমেশ যাদবকে তাই খুব ভয়ঙ্কর মনে হচ্ছে না শুরুতে। বাংলাদেশের দুই ওপেনার ইমরুল কায়েস ও সাদমান ইসলাম শুরু করেছেন বেশ সতর্কতায় ও নির্ভরতায়।

গোলাপি বলের টেস্টে প্রথম রান এসেছে ইমরুলের ব্যাট থেকে। প্রথম বাউন্ডারি মেরেছেন সাদমান ইসলাম, চতুর্থ ওভারে। উমেশ যাদবের ওই ওভারেই দারুণ পুলে সাদমান বাউন্ডারি মেরেছেন আরেকটি।

৫ ওভার শেষে বাংলাদেশ কোনো উইকেট না হারিয়ে ১৪। সাদমানের রান ১০, ইমরুলের ৪।

Share via
Copy link
Powered by Social Snap