1. banglalivedesk@gmail.com : banglalive :
  2. emonbanglatv@gmail.com : Dewan Emon : Dewan Emon
জাবিতে প্রকল্পের টাকা ‘লুটপাটের’ প্রতিবাদে বিক্ষোভ
বুধবার, ৩০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ১২:২৫ অপরাহ্ন

জাবিতে প্রকল্পের টাকা ‘লুটপাটের’ প্রতিবাদে বিক্ষোভ

বাংলালাইভ২৪.কম
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর, ২০১৯
আরিফুজ্জামান উজ্জল, জাবি করেসপন্ডেন্ট । বাংলালাইভ২৪.কম

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ে (জাবি) অধিকতর উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় চলমান তিনটি ছাত্রী হলের নির্মান কাজে অনিয়ম ও টাকা ‘লুটপাটের’ প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও প্রতিবাদ সমাবেশ করেছে ‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ ব্যানারে আন্দোলনরত শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

বৃহস্পতিবার (১২ ডিসেম্বর) বিকাল ৪টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের টারজান পয়েন্ট এলাকা থেকে মিছিলটি শুরু হয়ে মেয়েদের হল, পুরাতন প্রশাসনিক ভবন ও গুরুত্বপূর্ন সড়কসমূহ প্রদক্ষিন করে নতুন প্রশাসনিক ভবনের সামনে এসে প্রতিবাদ সমাবেশের মাধ্যমে শেষ হয়।

সমাবেশে সমাজতান্ত্রিক ছাত্রফ্রন্ট জাবি শাখার সাংগঠনিক সম্পাদক শোভন রহমান বলেন, ‘সম্প্রতি একটি জাতীয় দৈনিকে প্রকাশিত খবরে দেখেছি বিশ্ববিদ্যালয়ে চলমান মেয়েদের তিনটি হলের কাজ থেকে ১৪কোটি টাকা গায়েব হয়েছে। আসলেই সেই ১৪কোটি টাকা গায়েব হয়েছে, নাকি সেলামী হিসেবে কারও পকেটে গিয়ে ঢুকেছে? আমরা বলতে চাই বরাবরের মতো বিগত প্রত্যেকটি চুরি, লুটপাট ও সিডিউল ছিনতাই সহ কয়েকটি ঘটনার যেমন বিচার হয়নি, তেমনি ১৪কোটি টাকা গায়েবের ঘটনার বিচার না হলে জাহাঙ্গীরনগর আবার উত্তাল হবে।’

‘দুর্নীতির বিরুদ্ধে জাহাঙ্গীরনগর’ ব্যানারে আন্দোলনের সংগঠক ও দর্শন বিভাগের অধ্যাপক কামরুল আহসান বলেন, ‘তিনটি হলে প্রায় চৌদ্দ কোটি টাকা লোপটের ব্যবস্থা করেছে প্রশাসন। আমরা কতজন এই দুর্নীতির বিরোধিতা করছি তা বিষয় নয়। বিশ্ববিদ্যালয়ে শীতকালীন ছুটি দেয়া হচ্ছে, এই ছুটিও তো শেষ হবে।

আপনি (ভিসি) কান বন্ধ রাখলেও আপনার বিরুদ্ধের স্লোগান বাতাসে ভাসবে। আপনি একজন উপাচার্য বা অভিভাবক হিসেবে ব্যর্থ। তদন্ত প্রক্রিয়ার প্রতি সম্মান রেখে আপনি সাময়িকভাবে সরে যান। এই আন্দোলনের ফলাফল হচ্ছে জাহাঙ্গীরনগর মুক্ত হবে। তাই যতক্ষণ না আপনার অপসারণের মধ্য দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয় মুক্ত হচ্ছে ততক্ষণ এই আন্দোলন জারি থাকবে।‘

উল্লেখ্য, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিকতর উন্নয়ন প্রকল্পের জন্য গত বছরের ২৩ অক্টোবর ১৪৪৫ কোটি টাকা বরাদ্দ দেয় জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী পরিষদ (একনেক)। এই প্রকল্পের অধীনে এক হাজার আসন বিশিষ্ট ছেলেদের ৩টি ও মেয়েদের ৩টি হলের টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে। এই প্রকল্পের অধীনে ইতিমধ্যে মেয়েদের ৩টি হলের (১৭, ১৮ এবং ১৯নং হল) কাজ শুরু হয়েছে। তবে হলগুলোর ফাউন্ডেশনে পাইলিংয়ের পরিবর্তে কম মূল্যের ম্যাট পদ্ধতি ব্যবহারসহ মহাপরিকল্পনার সিডিউলের সঙ্গে তিন জায়গায় অসঙ্গতির অভিযোগ উঠেছে।

এ জাতীয় আরো খবর

সতর্কতা

বাংলালাইভ২৪.কমে প্রকাশিত বা প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© All rights reserved © 2019 BanglaLive24
Theme Developed BY ThemesBazar.Com
themesbazarbanglalive1