1. banglalivedesk@gmail.com : banglalive :
  2. emonbanglatv@gmail.com : Dewan Emon : Dewan Emon
বৃহত্তর দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে বিক্রির হাত থেকে রক্ষা পেল তরুনী
বৃহস্পতিবার, ২২ অক্টোবর ২০২০, ০৬:৫৮ পূর্বাহ্ন

বৃহত্তর দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে বিক্রির হাত থেকে রক্ষা পেল তরুনী

মইনুল হক মৃধা, গোয়ালন্দ করেসপন্ডেন্ট । বাংলালাইভ২৪.কম
  • আপডেট সময় শনিবার, ১৭ অক্টোবর, ২০২০

রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া যৌনপল্লীতে বিক্রির হাত থেকে রক্ষা পেল ১৮ বছর বয়সী এক তরুনী। শুক্রবার দিনগত রাতে দৌলতদিয়া যৌনপল্লী সংলগ্ন একটি বাড়ি থেকে ওই তরুনীকে উদ্ধার করে গোয়ালন্দের এসিল্যান্ড মো. রফিকুল ইসলাম।

তার বাড়ি নারায়নগঞ্জ জেলার সোনারগাঁ উপজেলায়।এদিকে এ ঘটনায় স্থানীয় প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের মধ্যে সমন্বয়হীনতায় শনিবার বিকেল পর্যন্ত থানায় কোন মামলা বা অন্য কোন সিদ্ধান্ত গ্রহন করা যায়নি এরকম অভিযোগ উঠেছে।

শনিবার বিকেলে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় উদ্ধার হওয়া তরুনী জানায়, তিন বছর আগে রিয়াদ হোসেন রাফি নামে এক ব্যক্তির সাথে তার পারিবারিক ভাবে বিয়ে হয়। নানা কারণে বছর খানেক আগে তাদের মধ্যে ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। বাবার বাড়িতে থাকা অবস্থায় সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমে গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়ার বাসিন্দা লিনা নামের এক মেয়ের সাথে তার পরিচয় হয়।

আমাদের মধ্যে একাধিক বার দেখা-স্বাক্ষাতও হয়। লিনার জন্মদিন উপলক্ষে সে আমাকে তাদের বাড়িতে আসতে বলে। এ জন্য লিনা টিটো (২১) নামের এক যুবককে তাকে আনতে পাঠায়। গত বৃহস্পতিবার টিটো আমাকে তার সাথে করে এনে দৌলতদিয়ার একটি বাড়িতে রেখে যায়।

এক পর্যায়ে সে জানতে পারে তাকে যৌনপল্লীতে পাচারের জন্য এখানে আনা হয়েছে। তবে সেটা কার বাড়ী আমি তা জানি না।

এ বিষয়ে গোয়ালন্দ উপজেলার সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. রফিকুল ইসলাম জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে তিনি বিষয়টি জানতে পেরে ওই তরুনীকে উদ্ধার করেন। উদ্ধার হওয়া তরুনীর পরিবারের সাথে কথা বলে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহনের লক্ষ্যে বিষয়টি উপজেলা নির্বাহী অফিসারকে অবগত করা হয়।

তার নির্দেশে রাতে ওই তরুনীকে স্থানীয় উন্নয়ন সংস্থা মুক্তি মহিলা সমিতি (এমএমএস) পরিচালিত সেভ হোমে রাখা হয়। কার বাড়ি থেকে উদ্ধার করা হয়েছে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আপাতত বলতে পারব না, কারণ যে কাগজে নাম ঠিকানা লিপিবদ্ধ করা হয়েছে সেটা এখন আমার কাছে নেই।মুক্তি মহিলা সমিতির কর্মকর্তা আতাউর রহমান মন্জু জানান, সহকারী কমিশনার (ভূমি) ও উপজেলা নির্বাহী অফিসারের নির্দেশে আমরা ওই তরুনীকে সেভ হোমে রাখি। তাদের নির্দেশেই শনিবার ওই তরুনীকে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় পৌছে দেই।

এ ব্যাপারে গোয়ালন্দ ঘাট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর জানান, শনিবার ভোর ৩ টার দিকে পুলিশের জাতীয় সেবা কেন্দ্র ৯৯৯ থেকে ফোনে ওই তরুনীকে উদ্ধারের নির্দেশনা আসে। দ্রুত পুলিশ পাঠিয়ে ওই তরুনীকে উদ্ধারের চেষ্টা করলে মুক্তি মহিলা সমিতি থেকে বলা হয় সহকারী কমিশনার (ভূমি) ওই তরুনীকে রেখে গেছেন, তাই এ ব্যাপারে তার সাথে যোগাযোগ করতে। একপর্যায়ে পুলিশ সেখান থেকে ফিরে আসে। শনিবার দুপুরে মুক্তি মহিলা সমিতির দুই কর্মী দিয়ে ওই তরুনীকে থানায় পাঠিয়ে দেয়। এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসারের পরামর্শে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহন করা হবে।

অভিযানের সময় পুলিশ থাকলে পাচার চক্রের সদস্যদের আটক করা সহজ ছিল। তাছাড়া নারী ও শিশু সংক্রান্ত বিষয়ে অবশ্যই নারী পুলিশ সদস্য সঙ্গে থাকা বাঞ্চনীয় বলে তিনি মন্তব্য করেন।

 

এ জাতীয় আরো খবর

সতর্কতা

বাংলালাইভ২৪.কমে প্রকাশিত বা প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© All rights reserved © 2019 BanglaLive24
Theme Developed BY ThemesBazar.Com
themesbazarbanglalive1