1. banglalivedesk@gmail.com : banglalive :
  2. emonbanglatv@gmail.com : Dewan Emon : Dewan Emon
  3. emonnagorik@gmail.com : Rajbari Correspondent : Rajbari Correspondent
মিয়ানমার সংকট নিরসনে কূটনৈতিক উদ্যোগ
রবিবার, ১১ এপ্রিল ২০২১, ০৩:১১ পূর্বাহ্ন

মিয়ানমার সংকট নিরসনে কূটনৈতিক উদ্যোগ

আন্তর্জাতিক ডেস্ক । বাংলালাইভ২৪.কম
  • আপডেট সময় বৃহস্পতিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারী, ২০২১

মিয়ানমারে সেনা অভ্যুত্থানের পর তৈরি হওয়া সংকট নিরসনে ইন্দোনেশিয়া দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার অন্য দেশগুলোকে নিয়ে একটি কূটনৈতিক উদ্যোগ জোরদার করার চেষ্টা করছে। এ নিয়ে আলোচনার জন্য জান্তা সরকারের নতুন পররাষ্ট্রমন্ত্রী উন্না মং লুইন বুধবার থাইল্যান্ডে গেছেন।

থাই সরকার বলেছে, তারা বিষয়টি নিয়ে কাজ করছে। তবে তাদের এ প্রচেষ্টা ঘিরে সন্দেহ তৈরি হয়েছে আন্দোলনকারীদের মধ্যে। তাদের আশঙ্কা প্রতিবেশী দেশগুলোর এমন উদ্যোগের মাধ্যমে নভেম্বরের নির্বাচনের ফল বাতিল করে জান্তাকে বৈধতা দেওয়া হতে পারে।

বুধবারও মিয়ানমারের রাজপথে বিক্ষোভ করেন হাজার হাজার আন্দোলনকারী। দেশটির বৃহত্তম শহর ইয়াঙ্গুনের উত্তরাংশের মায়ানগোনে একটি বহুজাতিক সমাবেশের আয়োজন করা হয়। মিয়ানমার সরকারের ফাঁস হওয়া একটি নথি থেকে জানা গেছে, আজ ইন্দোনেশিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী রেতনো মারসুদি মিয়ানমার যেতে পারেন।

তার সফরের লক্ষ্য সংকট সমাধানে একটি কূটনৈতিক উদ্যোগ শুরু করা। মিয়ানমার বিষয়ে একটি বিশেষ বৈঠকের আয়োজন করার জন্য দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দেশগুলোর সমর্থন পাওয়ার চেষ্টা করছেন রেতনো। জানা গেছে, জাকার্তা প্রস্তাব দিয়েছে ওই অঞ্চলের দেশগুলো পর্যবেক্ষক পাঠাবে এটি নিশ্চিত করতে যেন মিয়ানমারের জেনারেলরা ‘সব দলকে নিয়ে একটি সুষ্ঠু নির্বাচনের’ আয়োজন করে।

মঙ্গলবার ইয়াঙ্গুনে ইন্দোনেশিয়ার দূতাবাসের সামনে কয়েকশ লোক জড়ো হয়ে ওই নির্বাচন প্রস্তাবের বিরোধিতা করে বিক্ষোভ দেখিয়েছে। বুধবার মিয়ানমারের মুসলিম সম্প্রদায়ের সদস্যদের সেখানে আরেকটি প্রতিবাদ করার কথা রয়েছে। মিয়ানমারভিত্তিক আন্দোলনকারী গোষ্ঠী ‘ফিউচার ন্যাশন অ্যালায়েন্স’ এক বিবৃতিতে বলেছে, রেতনোর ভ্রমণ ‘সামরিক জান্তাকে স্বীকৃতি দেওয়ার সমতুল্যই হবে’।

মঙ্গলবার ইন্দোনেশিয়ার পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক মুখপাত্র বলেছেন, রেতনো থাইল্যান্ডে আছেন আর তারপর ওই অঞ্চলের অন্যান্য দেশেও যেতে পারেন; কিন্তু কোন দেশ তা নিশ্চিত করতে পারেননি তিনি। ইন্দোনেশিয়ার অবস্থান মিয়ানমারের নতুন নির্বাচনের পক্ষে নয় বলেও দাবি করেছেন তিনি।

মিয়ানমারে গত নভেম্বরের নির্বাচনে অং সান সু চির ক্ষমতাসীন দল ন্যাশনাল লিগ ফর ডেমোক্রেসি (এনএলডি) বিপুল জয় পায়। কিন্তু নির্বাচনে কারচুপির অভিযোগ তোলে সেনাবাহিনী। তারা পার্লামেন্টের প্রথম অধিবেশন শুরুর কয়েক ঘণ্টা আগে ১ ফেব্র“য়ারি ভোরে সামরিক অভ্যুত্থান করে। এদিন সেনাপ্রধান মিন অং হ্লাইংয়ের নেতৃত্বাধীন সেনাবাহিনী সু চির সরকারকে উৎখাত করে ক্ষমতা দখল করে। এরপর দেশজুড়ে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়। সেনাবাহিনী সু চি ও প্রেসিডেন্ট উইন মিন্টসহ রাজনৈতিক নেতাদের গ্রেফতার করে। জরুরি অবস্থার মধ্যেই জান্তা শাসনবিরোধী আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছেন দেশটির জনগণ।

মিয়ানমারের ১০৮৬ নাগরিককে ফেরত পাঠাল মালয়েশিয়া : আদালতের নির্দেশ অমান্য করে মিয়ানমারের সহস্রাধিক নাগরিককে ফেরত পাঠিয়েছে মালয়েশিয়া। মঙ্গলবার সেনাবাহিনীর পাঠানো তিনটি জাহাজে করে এক হাজার ৮৬ জন নাগরিককে ফেরত পাঠানো হয়। মানবাধিকার গোষ্ঠীর একজন আইনজীবীর রিটের পরিপ্রেক্ষিতে কুয়ালালামপুরের উচ্চ আদালত মিয়ানমারের ওই নাগরিকদের ফেরত পাঠানো বুধবার পর্যন্ত স্থগিত করেছিল। কিন্তু শেষ পর্যন্ত আদালতের নির্দেশ অমান্য করেই তাদের ফেরত পাঠানো হলো।

এ জাতীয় আরো খবর

সতর্কতা

বাংলালাইভ২৪.কমে প্রকাশিত বা প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

বিজ্ঞাপন

© All rights reserved © 2019 BanglaLive24
Theme Developed BY ThemesBazar.Com
themesbazarbanglalive1