ঢাকাসোমবার, ১৮ই অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ

আশুলিয়া থানা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক প্রার্থী সুমন আহমেদ ভূঁইয়া

স্টাফ করেসপন্ডেন্ট
সেপ্টেম্বর ২০, ২০২১ ৯:১২ অপরাহ্ণ
Link Copied!

আশুলিয়া থানা যুবলীগের পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে সাধারণ সম্পাদক পদে নেতাকর্মীদের পছন্দের তালিকায় রয়েছেন আশুলিয়ার কৃতিসন্তান সুমন আহমেদ ভূঁইয়া।

কর্মীবান্ধব মুজিব আদর্শের রাজপথের লড়াকু সৈনিক সুমন আহমেদ ভূইয়াকে আশুলিয়া থানা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক পদে দেখতে চান সর্বস্তরের নেতাকর্মীরা।

এর আগেও তিনি থানা যুবলীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেছেন নিষ্ঠার সাথে।

বর্তমানে ৯০ দিনের আহ্বায়ক কমিটি দিয়ে চার বছর পার হয়ে গেলেও পূর্ণাঙ্গ কমিটি না হওয়ায় এতদিন হতাশার মধ্যে ছিলেন স্থানীয় যুবলীগের নেতাকর্মীরা ।

স্থানীয় নেতাকর্মীরা বলেন, বর্তমান আহ্বায়ক কমিটি নিজেদের ব্যর্থ হিসেবে প্রমাণ দিয়েছেন। ৯০ দিনের আহ্বায়ক কমিটি দেওয়া হলেও চার বছরেও তা পূর্ণাঙ্গ কমিটিতে রূপ নেয়নি। সমালোচিত দের দিয়ে আহ্বায়ক কমিটি করায় প্রকৃত যুবলীগের নেতাকর্মীরা এতদিন ছিলেন দ্বিধাদ্বন্দ্বের মধ্যে । সদ্য ঢাকা জেলা যুবলীগের কমিটি বিলুপ্ত হওয়ায়। অতি শীঘ্রই ঢাকা জেলার আওতায় সকল থানা কমিটির পূর্ণাঙ্গ করা হবে এই আশ্বাসে চাঞ্চল্য বিরাজ করছে সংগঠনের নেতাকর্মীদের মাঝে। নতুন কমিটিতে কারা স্থান পাবেন সেজন্য চলছে নানা জল্পনা-কল্পনা। কমিটিতে স্থান পেতে বিভিন্ন পর্যায়ে চলছে প্রত্যাশীদের দৌড়ঝাঁপ। যুবলীগের সাবেক নেতাকর্মীরা চান যুব বান্ধব নেতৃত্ব। যার মধ্যে যুব রাজনীতির অভিজ্ঞতাসমৃদ্ধ কর্মীবান্ধব গতিশীল ও সহজপ্রাপ্য কাউকে। এমনই একজন সুমন আহমেদ ভূঁইয়া।

বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে শিক্ষাজীবন থেকেই সুমন আহমেদ ভূঁইয়া রাজনীতিতে জড়িয়ে পড়েন অতপ্রোতভাবে। তার রাজনৈতিক জীবনে ১৯৯৮ সালে ইয়ারপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। এরপরে ২০০৬ সাল থেকে ২০১২ সাল পর্যন্ত ইয়ারপুর ইউনিয়ন যুবলীগের দায়িত্ব পালন করেন সুমন আহমেদ ভূঁইয়া। এর পর থেকে তিনি ২০১৭ সাল পর্যন্ত আশুলিয়া থানা যুবলীগের প্রতিষ্ঠাতা সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে সাফল্যের সাথে দায়িত্ব দায়িত্ব পালন করেন ।

আশুলিয়ার এ কৃতিসন্তান ছাত্রজীবন থেকেই ছিলেন বিপ্লবী । অন্যায়ের বিরুদ্ধে ছিলেন প্রতিবাদী কন্ঠস্বর। বিএনপি জামাত জোট সরকারের সময় তিনি ছিলেন রাজপথের লড়াকু সৈনিক । এছাড়াও দলীয় যেকোনো কর্মসূচিতে সবচেয়ে বেশি নেতাকর্মী নিয়ে হাজির হওয়া আশুলিয়ার মধ্যে আমাদের একমাত্র ব্যক্তিও তিনি।

রাজনৈতিক পরিবারে জন্ম নেওয়া সুমন আহমেদ ভূঁইয়ার বাবা সৈয়দ আহমেদ ভূঁইয়া সাভার উপজেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি। এছাড়াও তিনি ইয়ারপুর ইউনিয়ন পরিষদের দুই দুইবারের নির্বাচিত চেয়ারম্যান।

নিজেকে সৎ যোগ্য দাবি করে সুমন আহমেদ ভূঁইয়া বলেন বলেন, ‘আমি দলে অনুপ্রবেশকারী নয়। ছাত্রজীবন থেকে সততার সঙ্গে রাজনীতি করে যোগ্যতার পরিচয় দিয়েছি। টেন্ডারবাজি, চাঁদাবাজি, মাদকের সঙ্গে কখনও নিজেকে জড়াইনি। ছাত্রলীগ থেকে রাজনীতির হাতেখড়ি, থানা যুবলীগেরও একটি গুরুত্বপূর্ণ পদে নিষ্ঠার সাথে দায়িত্ব পালন করেছি। কর্মীদের মূল্যায়ন ও দলের ভাবমূর্তি বৃদ্ধির জন্য আমি মনে করি আমি এই পদের যোগ্য, তাই প্রত্যাশী।

তিনি আরও বলেন, বঙ্গবন্ধুর আদর্শ বুকে লালন করে জননেত্রী শেখ হাসিনার দেখানো পথে নিজেকে অবিচল রেখেছি। নেতাকর্মীরা যদি মনে করে আমি যোগ্য তাহলে আমাকে নির্বাচিত করবে। আমি যদি সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পাই তবে প্রকৃত নেতা-কর্মীদের দিয়ে কমিটি গঠন করে শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে কাজ করে যাব।